ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস

  • ১৯২১

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সূচনা

১৯২১ সালের ১লা জুলাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ৩টি অনুষদ ( কলা, বিজ্ঞান, আইন); ১২টি বিভাগ (সংস্কৃত ও বাংলা, ইংরেজি, শিক্ষা, ইতিহাস, আরবী ও ইসলামিক স্টাডিজ, ফার্সী ও উর্দু, দর্শন, অর্থনীতি ও রাজনীতি, পদার্থ বিজ্ঞান, রসায়ন, গণিত, এবং আইন); ৩টি ছাত্রাবাস (সলিমুল্লাহ মুসলিম হল, ঢাকা হল এবং জগন্নাথ হল) নিয়ে তার যাত্রা শুরু করে।

  • ১৯২৩

১৯২৩ সালের ২২ ফেব্রুয়ারী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৩৮

রাষ্ট্রবিজ্ঞান একটি পৃথক বিভাগ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৪০

ফজলুল হক মুসলিম হল প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৪৭

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ প্রতিষ্ঠিত হয়।

এই উপমহাদেশে ব্রিটিশ শাসনের সমাপ্তির মাধ্যমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়নের প্রথম পর্যায় সম্পন্ন হয়।

  • ১৯৪৮

কলা অনুষদের অধীনে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি এবং বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে ভূগোল বিভাগ (বর্তমান ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগ) প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৪৯

বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে মৃত্তিকা বিজ্ঞান (বর্তমানমৃত্তিকা, পানি ও পরিবেশ) এবং ভূবিদ্যা বিভাগ প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৫০

বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে পরিসংখ্যান বিভাগ প্রবর্তিত হয়।

  • ১৯৫২

ভাষা আন্দোলনের বছর

বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্র ভাষা করার দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ভূমিকা পালন করে।

  • ১৯৫৪

উদ্ভিদবিদ্যা একটি পৃথক বিভাগ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয় এবং প্রাণিবিদ্যা বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে তার কার্যক্রম শুরু করে।

  • ১৯৫৭

কলা অনুষদের অধীনে সমাজবিজ্ঞান বিভাগ এবং বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে প্রাণরসায়ন বিভাগ (বর্তমান প্রাণরসায়ন ও আণবিক বিভাগ) প্রতিষ্ঠিত হয়। এছাড়া ইকবাল হল প্রতিষ্ঠিত হয় যার পরবর্তীতে ১৯৭২ সালে নামকরণ করা হয় সার্জেন্ট জহুরুল হক হল।

  • ১৯৫৯

কলা অনুষদের অধীনে গ্রন্থাগার বিজ্ঞান বিভাগ (পরবর্তীতে নামকরণ করা হয় তথ্য বিজ্ঞান ও গ্রন্থাগার ব্যবস্থাপনা) প্রতিষ্ঠিত হয়। এছাড়া ১৯৫৬ সালে কতিপয় শিক্ষক দ্বারা গঠিত হওয়া অর্থনৈতিক গবেষণা ব্যুরো আনুষ্ঠানিক ভাবে পরিচিতি লাভ করে।

  • ১৯৬০

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষাঙ্গনে বাণিজ্য অনুষদের সূচনা হয়।

  • ১৯৬১

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৬২

সাংবাদিকতা বিভাগ (বর্তমান গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ) প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৬৩

প্রথম ছাত্রীনিবাস রোকেয়া হল প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৬৪

বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে ফার্মেসী বিভাগ তার যাত্রা শুরু করে। এছাড়া পরিসংখ্যান গবেষণা ও প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৬৫

বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে ফলিত পদার্থবিদ্যা বিভাগ (বর্তমান ফলিত পদার্থবিদ্যা, ইলেকট্রনিক্স ও যোগাযোগ প্রকৌশল বিভাগ) তার কার্যক্রম শুরু করে। এছাড়া মনোবিজ্ঞান বিভাগ এই বিজ্ঞান অনুষদের অধীনেই প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৬৬

ইন্টারন্যাশনাল হোস্টেল (বর্তমান স্যার পি.জে. হার্টগ ইন্টারন্যাশনাল হল) প্রতিষ্ঠিত হয়।  এম.এ. জিন্নাহ হল প্রতিষ্ঠিত হয় যার পরবর্তীতে ১৯৭২ সালে নামকরণ করা হয় সূর্যসেন হল। এছাড়া ১৯৬৬ সালের স্বায়ত্তশাসন আন্দোলনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

  • ১৯৬৭

হাজী মুহম্মদ মুহসীন হল প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৬৯

খাদ্য ও পুষ্টি বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠিত হয়। এছাড়া ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

  • ১৯৭০

অর্থনীতি, রাষ্ট্র বিজ্ঞান, সমাজবিজ্ঞান, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও জনপ্রশাসন বিভাগ নিয়ে সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ প্রতিষ্ঠিত হয়। হিসাববিজ্ঞান (বর্তমান এ.আই.এস) ও ব্যবস্থাপনা (বর্তমান ম্যানেজমেন্ট স্টাডিস) বিভাগ নিয়ে বাণিজ্য অনুষদ ( বর্তমান ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদ) তার কাজ শুরু করে।

  • ১৯৭১

মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার বছর

স্বাধীনতার যুদ্ধে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৪ জন শিক্ষক, ১ জন কর্মকর্তা, ২৬ জন কর্মচারী এবং কয়েক শত ছাত্রছাত্রী তাদের জীবন দেয়। এছাড়া দ্বিতীয় ছাত্রীনিবাস শামসুন্নাহার হল প্রতিষ্ঠিত হয়।

পাকিস্তানি শাসনের সমাপ্তির মাধ্যমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়নের দ্বিতীয় পর্যায় সম্পন্ন হয় এবং স্বাধীন রাষ্ট্র বাংলাদেশে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় পর্যায় শুরু হয়।

  • ১৯৭২

বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে ফলিত রসায়ন বিভাগ (বর্তমান ফলিত রসায়ন ও রাসায়নিক প্রযুক্তি) তার কার্যক্রম শুরু করে। এছাড়া সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে পাবলিক এডমিনিস্ট্রেশন বিভাগ প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৭৩

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আদেশ ১৯৭৩ বলবৎ হয়, যার মাধ্যমে গণতান্ত্রিক নিয়ম এবং স্বায়ত্তশাসন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবিচ্ছেদ্য বৈশিষ্ট্য হয়ে ওঠে। ইনস্টিটিউট অব সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার অ্যান্ড রিসার্চ প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৭৪

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে আধুনিক ভাষা ইনস্টিটিউট তার কার্যক্রম শুরু করে। মৃত্তিকা বিজ্ঞান (বর্তমান মৃত্তিকা, পানি ও পরিবেশ), উদ্ভিদবিদ্যা, প্রাণিবিদ্যা, প্রাণরসায়ন (বর্তমান প্রাণরসায়ন ও অণুজীব বিভাগ), মনোবিজ্ঞান এবং ফার্মাসি বিভাগ নিয়ে জীববিজ্ঞান অনুষদ প্রতিষ্ঠিত হয়। বাণিজ্য অনুষদের অধীনে ফিন্যান্স এবং মার্কেটিং বিভাগ প্রতিষ্ঠিত হয়। ব্যবসায়িক গবেষণা ব্যুরো তার কার্যক্রম শুরু করে।

  • ১৯৭৬

কবি জসিমউদ্দিন হল এবং এ.এফ. রহমান হল প্রতিষ্ঠিত হয়। পরিবেশ বিজ্ঞানের অধীনে সেন্টার ফর অ্যাডভান্সড স্টাডিস অ্যান্ড রিসার্চ প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৭৯

জীববিজ্ঞান অনুষদের অধীনে অণুজীববিজ্ঞান বিভাগ প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৮০

কলা অনুষদের অধীনে ইসলাম শিক্ষা একটি স্বতন্ত্র বিভাগ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৮১

রিনিউইয়েবল এনার্জি রিসার্চ সেন্টার প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৮৩

চারুকলা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্গত হয়।

  • ১৯৮৪

সামাজিক বিজ্ঞানের অধীনে সেন্টার ফর অ্যাডভান্সড স্টাডি অ্যান্ড রিসার্চ প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৮৫

১৫ অক্টোবর, বর্তমান জগন্নাথ হলের একটি অংশ ধ্বসে পরে, এবং এতে ২৬ জন ছাত্র, ১৪ জন কর্মকর্তা এবং অতিথি মারা যায়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সেমি-কন্ডাক্টর টেকনোলজি রিসার্চ সেন্টার এবং বায়োটেকনোলজি রিসার্চ সেন্টার চালু হয়।

  • ১৯৮৭

সেন্টার ফর ন্যাশনাল রিসার্চ সায়েন্টিফিক (সি.এন.আর.এস.), ফ্রান্স ও মৃত্তিকা বিজ্ঞান বিভাগ নিয়ে বায়োলজিক্যাল নাইট্রজেন ফিক্সেশন রিসার্চ ইউনিট প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৮৮

মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হল এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল প্রতিষ্ঠিত হয়। নজরুল গবেষণা কেন্দ্র এবং আর্কাইভ ও ইতিহাস গবেষণা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৮৯

তৃতীয় ছাত্রীনিবাস বাংলাদেশ কুয়েত মৈত্রী হল এবং ব্যবসায় প্রশাসন ইনস্টিটিউট হোস্টেল প্রতিষ্ঠিত হয়। ভৌগোলিক অবস্থান ও পরিবেশ বিভাগের অধীনে দুর্যোগ গবেষণা প্রশিক্ষণ ও ব্যবস্থাপনা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৯০

ভূতত্ত্ব বিভাগের অধীনে ডেল্টা স্টাডি সেন্টার প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৯২

বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে কম্পিউটার সায়েন্স বিভাগ (বর্তমান কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং), কলা অনুষদের অধীনে ভাষাবিদ্যা বিভাগ এবং সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে নৃবিজ্ঞান বিভাগ প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৯৩

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এম.ফিল ও পি.এইচ.ডি. এর ছাত্রীদের জন্য নবাব ফয়জুন্নেসা চৌধুরানী ছাত্রিনিবাস প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৯৪

কলা অনুষদের অধীনে নাট্যকলা ও সংগীত বিভাগ প্রতিষ্ঠিত হয়। মুক্তিযুদ্ধ গবেষণা কেন্দ্র সৃষ্টি হয়।

  • ১৯৯৫

ফার্মাসি বিভাগটিকে সঙ্গে নিয়ে ফার্মাসী অনুষদ প্রতিষ্ঠিত হয়। সেন্টার ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড পলিসি রিসার্চ প্রতিষ্ঠিত হয়। বাণিজ্য অনুষদের নামকরণ ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদ করে করা হয়।

  • ১৯৯৬

বায়ো মেডিক্যাল রিসার্চ সেন্টার প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৯৭

কলা অনুষদের অধীনে ওয়ার্ল্ড রিলিজিওন্স বিভাগ এবং জীববিজ্ঞান অনুষদের অধীনে ক্লিনিকাল সাইকোলজি বিভাগ প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ১৯৯৮

জীববিজ্ঞান অনুষদের অধীনে একুয়াকালচার অ্যান্ড ফিশারিস বিভাগ (পরবর্তীতে নামকরণ করা হয় মৎস্যবিজ্ঞান বিভাগ) তার কার্যক্রম শুরু করে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বাস্থ্য অর্থনীতি ইন্সটিটিউট চালু হয়।

  • ১৯৯৯

সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে জনসংখ্যা বিজ্ঞান বিভাগ এবং শান্তি ও সংঘর্ষ বিভাগ প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ২০০০

জীববিজ্ঞান অনুষদের অধীনে জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং ও বায়ো প্রযুক্তি বিভাগ এবং সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে উইমেন স্টাডিস (বর্তমানওমেন অ্যান্ড জেন্ডার স্টাডিস) বিভাগ প্রতিষ্ঠিত হয়। সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধীনে নাজমুল করিম স্টাডি সেন্টার প্রতিষ্ঠিত হয়। এছাড়া আরও প্রতিষ্ঠিত হয় সেন্টার ফর কালচারাল ডেভেলপমেন্ট রিসার্চ অব বাংলাদেশ। চতুর্থ ছাত্রীনিবাস বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব হল এবং অমর একুশে হল প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ২০০১

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তথ্য প্রযুক্তি ইনস্টিটিউট চালু হয়। সেন্টার ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড ইনস্টিটিউশনাল স্টাডিস, ডঃ সিরাজুল হক ইসলামিক গবেষণা কেন্দ্র, সেন্টার ফর এডুকেশনাল রিসার্চ অ্যান্ড ট্রেনিং এবং সেন্টার অব এক্সিলেন্স ফর অ্যাডভান্সড রিসার্চ ইন আর্টস অ্যান্ড সোশ্যাল সায়েন্স প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ২০০২

সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে ডেভেলপমেন্ট স্টাডিস বিভাগ তার কার্যক্রম শুরু করে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে জাপান স্টাডি সেন্টার এবং ল্যাঙ্গুয়েজ টিচিং সেন্টার চালু হয়। গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ কলা অনুষদের অধীনে হতে সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে আসে।

  • ২০০৩

ফার্মাসি বিভাগটি ফার্মাসিউটিক্যাল কেমিস্ট্রি, ক্লিনিক্যাল ফার্মাসি অ্যান্ড ফার্মাকোলজি এবং  ফার্মাসিউটিক্স অ্যান্ড ফার্মাসিউটিক্যাল টেকনোলজি বিভাগে বিভক্ত হয়। এছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যাল সাইবার সেন্টার চালু হয়। ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের অধীনে ব্যাংকিং বিভাগ এবং ম্যানেজমেন্ট ইনফর্মেশন সিস্টেম বিভাগ প্রতিষ্ঠিত হয়। আর্টস কম্পিউটার সেন্টার এবং সেন্টার ফর গভর্ন্যান্স স্টাডিস ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চালু হয়।

  • ২০০৪

ব্যবসায় প্রশাসন ইনস্টিটিউটের অধীনে বিশ্ববিদ্যালয় এবং শিল্প জোট প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ২০০৫

মাটি, পানি ও পরিবেশ বিভাগের অধীনে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সেন্টার ফর এনভাইরনমেন্টাল রিসার্চ প্রতিষ্ঠিত হয়। সেন্টার ফর কর্পোরেট গভর্ন্যান্স অ্যান্ড ফাইনান্স স্টাডিস এবং সেন্টার ফর মাইক্রোফাইনান্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তাদের কার্যক্রম শুরু করে।

  • ২০০৭

ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস এবং ট্যুরিজম এন্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগ ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের অধীনে প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ২০০৮

পৃথিবী ও পরিবেশ বিজ্ঞান অনুষদ, ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি অনুষদ এবং চারুকলা অনুষদ প্রতিষ্ঠিত হয়। বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে তাত্ত্বিক পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ পুনরূজ্জীবিত করা হয়। সেন্টার ফর অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ রিসার্চ অ্যান্ড ইনোভেশন, সেন্টার ফর ইন্টাররিলেজিয়াস অ্যান্ড ইন্টারকালচারাল ডায়লগ; সেন্টার ফর বৌদ্ধিস্ট হেরিটেজ অ্যান্ড কালচার এবং সেন্টার ফর ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ২০০৯

থিয়েটার অ্যান্ড মিউজিক বিভাগ পৃথক দুটি বিভাগ হয়- থিয়েটার বিভাগ এবং মিউজিক বিভাগ। ডিজাসটার অ্যান্ড ভালনারেবিলিটি স্টাডিজ সেন্টার প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ২০১০

গণহত্যা স্টাডিজ সেন্টার প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ২০১১

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তিনটি নতুন বিভাগ খোলা হয়। সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে টেলিভিশন ও চলচ্চিত্র গবেষণা বিভাগ, ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি অনুষদের অধীনে পারমাণবিক প্রকৌশল বিভাগ, জীববিজ্ঞান অনুষদের অধীনে শিক্ষা ও পরামর্শদান মনোবিজ্ঞান বিভাগ প্রতিষ্ঠিত হয়। রিনিউইয়েবল এনার্জি রিসার্চ সেন্টার পরিবর্তিত হয় ইনস্টিটিউট অব রিনিউইয়েবল এনার্জি। কটলার সেন্টার ফর মার্কেটিং এক্সিলেন্স (কে.সি.এম.ই.) প্রতিষ্ঠিত হয়।

  • ২০১২

পৃথিবী ও পরিবেশ বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে দুটি নতুন বিভাগ – সমুদ্রবিজ্ঞান বিভাগ এবং দুর্যোগ বিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা বিভাগ খোলা হয়। ইনস্টিটিউট অব ডিজাসটার ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড ভালনারেবিলিটি স্টাডিজ এবং ইনস্টিটিউট অব লেদার ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি প্রতিষ্ঠিত হয়। স্কানডিনেভিয়ান স্টাডি সেন্টার এবং ইস্ট এশিয়া স্টাডি সেন্টার প্রতিষ্ঠিত হয়।

Share Button
Print Friendly

2 comments

  1. (Y) ভাল লাগসে।।।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Close
Please support the site
By clicking any of these buttons you help our site to get better