ট্রাম্প রাজত্বের সূচনা!

গতকাল ২০ ডিসেম্বর মার্কিন মুল্লুকের রাষ্ট্রপতি হিসেবে ডোনাল্ড ট্রাম্পের আনুষ্ঠানিক শপথ গ্রহনের মাধ্যমে বিশ্বরাজনীতিতে ট্রাম্প রাজত্বের সূচনা হলো। ওয়াশিংটন ডিসির ক্যাপিটল হিলে বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী রাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব গ্রহনকরার পূর্বে শপথ বাক্য পাঠক রান জন রবার্টস।

তখন ঘড়িতে স্থানীয় সময় দুপুর ১২টা বাজে! আমেরিকার মহান প্রেসিডেন্ট আব্রাহাম লিংকনের স্মৃতি বিজড়িত পবিত্র বাইবেল হাতে রেখে শপথ বাক্য পাঠ করেন আলোচিত সমালোচিত ট্রাম্প। তিনি বলেন”আমি গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে শপথ করছি যে, আমি বিশ্বস্ততার সাথে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের দফতর পরিচালনা করব এবং সাধ্যের সবটুকু দিয়ে আমেরিকার সংবিধান রক্ষা, সংরক্ষণ ও প্রতিপালনে সচেষ্ট থাকব।”এরপূর্বেইবেলা ১১টা বেজে ৫৩ মিনিটে ডোনাল্ড ট্রাম্পের রানিং মেট মাইক পেন্স ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেন। শপথগ্রহনেরপরভক্তসমর্থকএবংজাতিরউদ্দেশ্যেভাষণেট্রাম্পবলেন “ আজতোমাদেরদিন! এইউৎসবআয়োজনতোমাদেরজন্য, আমেরিকারজনগনেরজন্য! আমরা ওয়াশিংটনে বসে ক্ষমতা জনগনের কাছে ফিরিয়ে আনছি।“

শপথ গ্রহনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিদায়ী প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা,ফার্স্টলেডি মিশেল ওবামা, সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন এবং স্ত্রী, ট্রাম্পের প্রেসিডেন্ট পদের নির্বাচনী প্রতিদ্বন্দ্বী হিলারি ক্লিনটন, আরেক সাবেক প্রেসিডেন্ট জর্জ বুশসহ অনেক সামরিক বেসামরিক উচ্চপদস্থ ব্যক্তিবর্গ। রাষ্ট্রপতি হিসেবে ট্রাম্পের অভিষেকের সূচনা হয় ট্রাম্প দম্পতিকে হোয়াইট হাউজে ওবামা দম্পতির স্বাগতম জানানোর মাধ্যমে।এরপর পরই শুরু হয় আনুষ্ঠানিকতা।

নানা বিতর্ক জন্ম দিয়ে আমেরিকার কমান্ডার ইন চিফ হওয়া ডোনাল্ড ট্রাম্পের এই যাত্রাটি অনেকের কাছেই অবিশ্বাস্য লাগতে পারে।সফল রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত ট্রাম্প কখনো মিস ইউনিভার্স প্রতিযোগীতার স্পন্সর হয়েছেন, কখনোও আবার তাকে দেখা গিয়েছে রেসলিংয়ের রিংয়ে। কোন রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা ছাড়াই প্রেসিডেন্ট পদের জন্য লড়েছেন, বাঘা বাঘা রিপাবলিকান প্রতিদ্বন্দ্বীদের পরাজিত করে নির্বাচনে লড়ার টিকেট জোগাড় করেছেন।সব জরিপ, হিসেব নিকেশকে ভুল প্রমান করে হিলারি ক্লিনটকে পরাজিত করেছিলেন তিনি। তবে ইলেকটোরাল কলেজের ভোট প্রদান করার দিন পর্যন্তও শঙ্কা পিছু ছাড়ে নি। তবে সব কিছুকে ছাপিয়ে তিনিই প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব গ্রহন করেছেন। তাঁর রাষ্ট্রপতি হিসেবে অভিষেক হবার পর সারাবিশ্বে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধানরা তাঁকে অভিনন্দন জানিয়েছেন, সংবাদ সম্মেলন করে কিংবা টুইট বার্তার মাধ্যমে। এর বিপরীত চিত্রও দেখা গেছে বিভিন্ন দেশে, ব্রিটেন, নিউজিল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া সহ অনেক দেশে হাজার হাজার মানুষ মার্কিন দূতাবাসের সামনে বিক্ষোভ করেছেন। খোদ মার্কিন মুল্লুকেইনিউইয়র্ক, ওয়াশিংটনডিসিসহবিভিন্নবড়বড়শহরেহাজারহাজারবিক্ষোভকারীপুলিশেরসাথেসংঘর্ষেলিপ্তহয়েছেন। শতাধিকবিক্ষোভকারীকেইতিমধ্যেগ্রেপ্তারকরাওহয়েছে।

এদিকে শপথ গ্রহনের পর পরই হোয়াইট হাউজের ওভাল অফিসে বসে তাঁর কাজ শুরু করে দিয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। বাস্তবায়ন করেছেন তাঁর অন্যতম প্রধান নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি। ওবামাকেয়ার নামে খ্যাত স্বাস্থবীমার বিভিন্ন নিয়ম আইনগতভাবে বাতিল করতে তাঁর সর্বপ্রথম নির্বাহী আদেশ তথা এক্সিকিউটিভ ওর্ডারে সই করেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প! এরপূর্বে তিনি সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সময়ে নিয়োগ পাওয়া বিভিন্ন দেশে নিয়োজিত মার্কিন রাষ্ট্রদূতদের অফিস ত্যাগের নির্দেশ দেন!

প্রথম দিন দায়িত্ব গ্রহনের পরএকটিই বার্তা দিলেন তাঁর ভক্ত সমর্থক ও দেশবাসীদের উদ্দেশ্যে ,সেটি হলো তিনি তাঁর প্রতিশ্রুতি ভুলে যান নি। আমেরিকাকে “পুনরায় মহান” করতে প্রয়োজনে সবই করবেন, তাঁরই ইংগিত পাওয়া গেলো প্রথম দিনে।

Share Button
Print Friendly

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Close
Please support the site
By clicking any of these buttons you help our site to get better